মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা জানবো,মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম। মুলতানি মাটি ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে থাকে কিন্তু,মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম এবার আমরা জেনে নেব। তাহলে চলুন এই পোস্টে চেনা যাক,মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম।
মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম
প্রিয় বন্ধুগণ, মুলতানি মাটির বিভিন্ন ব্যাবহার সম্পর্কে জানানো হবে। এটা আমরা সবাই জানি যে মুলতানি মাটি ত্বককে অনেক সুন্দর করে তোলে। কিন্তু মুলতানের মাটি ব্যবহারের নিয়ম এবং এটি উপকারিতা কি কি তা আজ জানবো এই পোস্টে। তাহলে বন্ধুরা দেরি না করে নিচে গিয়ে দেখা যাক কি রয়েছে মুলতানি মাটি নিয়ে।

ভূমিকা

প্রিয় বন্ধুগণ আছে এ পোস্ট আপনাদেরকে জানানো হবে, মুলতানি মাটি সম্পর্কে। এই মাটি ত্বকের জন্য অনেক উপকারে একটি মাটি। যেকোনো ত্বকে এই মাটিটি ব্যবহার করা যায়। এই মাটিটি ত্বকের মধ্যে লুকিয়ে থাকা ময়লা ,তেল ,জীবাণু বের করে ত্বককে করে তোলে উজ্জ্বল। এই মাটি সব ত্বকে ব্যবহারের জন্য বলা হয়ে থাকলেও, যাদের শুষ্ক ত্বক রয়েছে তারা এই মাটি ব্যবহারের জন্য ভয় পেয়ে থাকে। কারণ মুলতানি মাটি ত্বকের তেল শুষে নেয় এজন্য অনেকেই ভয় পায়। 
তো এইসব বিস্তারিত তথ্য আপনাদেরকে আজ এই পোস্টে জানানো হবে। যেগুলো আপনাদের অনেক উপকারে আসবে ।এবং এই তথ্যগুলোর মাধ্যমে আপনারা আপনাদের সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলতে পারবেন। নিচে এই বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে এই মাটিতে নিয়ে,চলুন সেগুলো আজ দেখে আসি।এবং অনেকে বলে থাকতে চাই এই মাটির উপকার রয়েছে কোন অপকার নেই। 

আবার অনেকে বলে থাকে, এই মাটি উপহারের পাশাপাশি কিছু অপকার রয়েছে। আজ তাহলে এসব কথা সত্যি মিথ্যা যাচাই এবং এই মাটি সম্পর্কে কিছু তথ্য চলুন সে গুলো জেনে আসি।

মুলতানি মাটির উপকারিতা ও অপকারিতা

প্রিয় বন্ধুগণ, আজকের আলোচনার মূল উপাদান হলো মাটি, মুলতানি মাটির উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানাতে আজকের এই পোস্ট।সব কিছুর ভালো ও খারাপ দিক রয়েছে।তো বন্ধুরা চলুন জেনে নেই,মুনতানি মাটির উপকারিতা ও অপকারিতা।
উপকারিতা
মুলতানি মাটির অনেক উপকারিতা রয়েছে এই মাটি ত্বকের সৌন্দর্য পাশাপাশি চুলের জন্যেও ব্যবহার হয়ে থাকে। এই মাটিটি ত্বকে প্রাকৃতিক ক্লিনজার হিসাবে কাজ করে থাকে। এইমাত্র টি ত্বকের ভেতর থেকে ময়লা বের করে এবং তোকে সৌন্দর্য করে তোলে। রোদে পোড়া কালো দাগ ।অথবা চোখের নিচে কালো দাগ দূর করতে এ মাটির ভূমিকা অনেক।
নিয়মিত এই মাটি ব্যবহারে এইসব দাগ দূর হয়ে যায়। ত্বকে ব্রণের সমস্যা দূর করে থাকে, অতিরিক্ত তেল বের করে নিয়ে আসে, এবং ত্বককে সৌন্দর্য করে তোলে।চুল মসৃণ ও সিল্কি করে তোলে। এবং চুলের উজ্জ্বলতা ফিরে আসে।
অপকারিতা
মুলতানি মাটির তেমন কোনো ক্ষতিকারক দিক নেই। এটি সঠিক নিয়মে ব্যবহার করলে ত্বকের তেমন কোন ক্ষতি হয় না। সবার ত্বকে ভিন্ন ভিন্ন রকম, এবং সব ত্বকের জন্য যেসব নিয়ম রয়েছে ওইসব নিয়ম ব্যবহারেই ত্বক সুন্দর হয়ে ওঠে। কিন্তু এটি শুষ্ক ত্বাকে একটু কম ব্যবহার করা ভালো কারণ এই মাটি ত্বকের তেল শোষণ করে নেই, এবং এই মাটিতে বিভিন্ন রকম প্রাকৃতিক উপাদান বিদ্যামান রয়েছে, তাই এই মাটি নিয়মিত ব্যবহার করলে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা কম।

মুলতানি মাটি দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

প্রতিটা ছেলে এবং মেয়ে অভয়ে ত্বক ফর্সা করতে চায়, আমাদের সমাজে যার গায়ের রং যত ফর্সা তাকে তত বেশি সুন্দরী বলা হয়ে থাকে। এ সুন্দরী উপাধি ছেলে-মেয়ে উভয়ের পেতে ভালো লাগে। এজন্য কম-বেশি সব মানুষের চাহিদা রয়েছে ফর্সা হওয়ার জন্য, মুলতানি মাটি যা একটি প্রাকৃতিক উপাদান এবং,মুলতানি মাটি দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় । সম্পর্কে আপনাদেরকে আজকে জানানো হবে, খুব সহজে এই মাটি দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করে ফর্সা হওয়া যায়।

মুলতানি মাটি দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় এ প্রথমে রয়েছে একটি ফেসপ্যাক, এই ফেসপ্যাক এ মুলতানি মাটি এক চামচ লেবুর রস ও মধু হাফ চামচ এবং গোলাপজল দুই চামচ নিয়ে ভালোভাবে মিশে নিয়ে। এই ফেসপ্যাকটি আস্তে আস্তে করে আলতোভাবে ত্বকে ব্যবহার করতে হবে। এই শেষ একটি আপনি আপনার মুখে ১৫ থেকে ২০ মিনিট লাগিয়ে রেখে ঠান্ডা পানি দিয়ে মেসেজ করে তুলে নিতে হবে। এই ফেস প্যাকটি আপনি আপনার ফেসে সপ্তাহে চার দিন ব্যবহার করতে পারবেন। 

এরপর দেখবেন আপনার ত্বক ধীরে ধীরে অনেক সুন্দর হয়ে উঠছে। এছাড়াও মুলতানি মাটি হাফ চামচ ,কমলার খোসা, কাঁচা হলুদ ও মধু একসঙ্গে নিয়ে মিশিয়ে তোকে ব্যবহার করতে হবে। এবং ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর তা আস্তে আস্তে ভাবে মেসেজ করে খেয়ে ফেলতে হবে। দেখবেন এতে আপনার ত্বক ফর্সা হয়ে যাচ্ছে।

মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম

প্রিয় বন্ধুগণ এবার জানানো হবে,মুলতানি মাটি দিয়ে ব্রণ দূর করার নিয়ম,ব্রণ দূর করার জন্য আমারা বিভিন্ন রকম ক্রিম ব্যবহার করে থাকি।কিন্তু এরপরেও ত্বকের ব্রণ দূর হয় না। মুলতানি মাটি তেল শোষণ করার ক্ষমতা থাকার জন্য ব্রণের সমস্যা খুব তাড়াতাড়ি দূর করতে সক্ষম হয়। নিচে কয়েকটি ফেসপ্যাক তৈরি করার পদ্ধতি সম্পর্কে জানা হয়েছে যেগুলো ব্রণ দূর করতে অনেক ভূমিকা পালন করে থাকে।
  • দুই চামচ মুলতানি মাটি, মধু ও এক চামচ হলুদ গুঁড়ো একসঙ্গে মিশে নিয়ে সেগুলো ১০ থেকে ১৫ মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রাখার পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এই পদ্ধতি সপ্তাহে তিন থেকে চারবার করতে হবে দেখবেন দ্রুত আপনার ব্রণের সমস্যা দূর হয়ে যাচ্ছে।
  • মুলদানি মাটি দুই চামচ গোলাপ জল ,নিমপাতা গুড়া এক চামচ ও লেবুর রসের এক চামচ নিয়ে ভালোভাবে মিশে তা ত্বকে ব্যবহার করতে হবে। এটি তোকে ১৫ থেকে ২০ মিনিট লাগিয়ে রাখতে হবে ।এবং এরপর হালকা মেসেজের মাধ্যমে ঠান্ডা পানি দিয়ে ত্বক থেকে তুলে ফেলতে হবে। এই পদ্ধতি সপ্তাহে কয়েকবার ব্যবহার করতে হবে দেখবেন আপনার ব্রণের সমস্যা তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যাচ্ছে।
এছাড়াও মুলতানি মাটি ও এলোভেরা এর সঙ্গে মিশে ত্বকে ব্যবহার করলে ব্রণের সমস্যা এর জন্য অনেক উপকারে হয়ে থাকে। এই উপায় গুলো ব্যবহারের মাধ্যমে ব্রণের সমস্যা খুব তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যায়।

মুলতানি মাটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয়

প্রিয় বন্ধুগণ আজকে আমরা জানবো,মুলতানি মাটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয়। মুলতানি মাটি যা ব্যবহারে ত্বকের সৌন্দর্য বেড়ে যায় এবং ত্বকে ফর্সা করে তোলে কিন্তু,মুলতানি মাটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয় এই বিষয়টা অনেকের অজানা রয়েছে, চলুন সেগুলো জেনে নিই, তৈলাক্ত ত্বকের জন্য মুলতানি মাটি অনেক উপকারী তলাক্ত ত্বকের জন্য গোলাপজল ও মুলতানি মাটি একসঙ্গে মিশে নিয়ে দশ থেকে পনের মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রাখার পর ঠান্ডা পানি নিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। 
এবং শুষ্ক ত্বকের জন্য মুলতানি মাটি ও মধু এর সঙ্গে মিশে ত্বকে ১০ থেকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখতে হবে তারপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। ব্রণের সমস্যা দূর করার জন্য, হলুদ গুঁড়ো বা কাঁচা হলুদ নিম পাতার পেস্ট ও মুলতানি মাটি এর সঙ্গে মিশিয়ে নিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ত্বকে লাগিয়ে রাখার পর ঠান্ডা পানি দিয়ে তাদের ফেলতে হবে। এটি সপ্তাহে তিন থেকে চারবার ব্যবহার করতে হবে তাহলে ত্বকে ব্রণের সমস্যা তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যাবে। 

এছাড়াও কালো দাগ বা রোদে পোড়া দাগ দূর করার জন্য, কাঁচা হলুদ টমেটোর রস ও মুলতানি মাটি এর সঙ্গে মিশিয়ে নিয়ে। ত্বকে ব্যবহার করতে হবে এর মাধ্যমে এই দাগগুলো খুব তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যাবে। হাত পা উঁচু করার জন্য বেসন কাঁচা হলুদ গোলাপ জল ও মুলতানি মাটি এর সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করলে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেললে হাত-পা দ্রুত উজ্জ্বল হয়। এইভাবে মুলতানি মাটির প্যাক তৈরি করলে আপনি দ্রুত একটি ভালো ফলাফল পাবেন।

মুলতানি মাটি কিভাবে তৈরি হয়

প্রিয় বন্ধুগণ এবার আপনার যদি জানিয়ে দেয়া হবে,মুলতানি মাটি কিভাবে তৈরি হয়। মুলতানি মাটি, যা পাকিস্তানের মুলতান শহর বলে এক জায়গা থেকে উৎপত্তি হয়েছে, মুলতানি মাটি কিভাবে তৈরি হয় এই প্রশ্নটার উত্তর, মুলতানি মাটি কোন কেমিকাল দিয়ে তৈরি হয় না। এটি একটি প্রাকৃতিক উপাদান, শহরটি মুলতান শহর নাম হওয়ায় এবং এ শহর থেকেই এই মাটি উৎপন্ন হয় মাঝেটির নাম রাখা হয়েছে মুলতানি মাটি। এই মাটিতে ম্যাগনেসিয়াম ,আয়রন, সিলিকন ইত্যাদি উপাদান রয়েছে।

যা ত্বকে ফর্সা করে তোলে, এই মাটিতে অনেক শোষণ ক্ষমতা সম্পন্ন মাটি। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য এই মাটিতে বেশ উপকারী। কারণ এ মাটি ত্বকের তেল শোষণ করে নেয়। তাহলে আমরা বুঝে গেলাম এই মাটিতে কিভাবে তৈরি হয়েছে।

শেষ কথা

প্রিয় বন্ধুগণ এই পোস্টটা আজকে আমরা মুলতানি মাটির বিভিন্ন উপকারিতা সম্পর্কে জানলাম, এবং এমনটা নিয়ে মাটির অপকারিতা বেশ সামান্য শুধু ব্যবহারের নিয়ম একটু অনিয়ম হলে একটু ক্ষতি হয়।তাছাড়া ব্যবহারের নিয়ম অনুসারে ব্যবহার করলে এটি ত্বকের কোনরকম ক্ষতি করে না। এছাড়া মুলতানি মাটি কোথা থেকে পাওয়া যায় এবং এটি কোন কেমিক্যাল পণ্য না এটি একটি প্রাকৃতিক মাটি তাও আজ আমরা জেনে গেলাম এই পোষ্টের মাধ্যমে। 
এবং কি কি প্যাক তৈরির মাধ্যমে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ি তোলা যায় এবং ত্বকের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করা যায় তা আজ জানা গেল এ পোস্টে। মুলতানি মাটি শুধু ত্বকে না ত্বকের পাশাপাশি চুলেও ব্যবহার করা যায়। এবং এটি চুলকে সাইন করে তোলে। তো বন্ধুরা আপনারা যদি এমন পোস্ট প্রতিদিন পেতে চান, আমাদের এই ওয়েবসাইটে মাঝেমধ্যে ভিজিট করবেন, এবং আপনার বন্ধুদের কাছে এসব শেয়ার করে দেবেন। এবং এই ওয়েবসাইটের পাশেই থাকবেন, ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

ফার্স্ট ব্লগার আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url